পটিয়া (চট্টগ্রাম) প্রতিনিধি: চট্টগ্রামে পটিয়া উপজেলার ১৭ ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায় জমজমাট মাদকের ব্যবসা চলছে। ক্ষমতাসীন দলের একশ্রেণীর পাতি নেতাদের মাধ্যমে মাদক পাচারের ব্যবসা চলে আসছে বলে বিভিন্ন সূত্রে জানা গেছে। চট্টগ্রাম-কক্সবাজার মহাসড়কের টেকনাফ থেকে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের সাথে পটিয়ার গুটিকয়েক পাতি নেতা সখ্যতা গড়ে তুলে পটিয়াকে মাদকের ছড়াছড়ি করে যুব সমাজকে ধ্বংস করে দিচ্ছে বলে একাধিক সূত্রে জানা গেছে। বিশেষ করে ৩ শতাধিক স্পটে ইয়াবা বিকিকিনি হচ্ছে বলে অভিযোগ রয়েছে এলাকাবাসীর। তার মধ্যে পটিয়ার কোলাগাঁও, কোলাগাঁও টেক, সফর আলী মুন্সির হাট, মোহাম্মদ নগর, পাচুঁরিয়া, হুলাইন, মিলিটারী পুল, মনসার টেক, মনসা চৌমুহনী, মেহের আটি, হরিণ খাইন, গোরণ খাইন, ফকিরা মসজিদ, কৈড়গ্রাম, কাশিয়াস নতুন বাজার, কর্ত্তলা, বেলখাইন, বেল্লা পাড়া, শান্তির হাট, কুসুমপুরা, লেঙ্গার দোকান, মালিয়ারা বাজার, আশিয়া বাংলা বাজার, বাথুয়া, মেলঘর, জঙ্গল খাইন, মৌলবীর হাট, আমজুর হাট, শাহ্ আমানত ফিলিং ষ্টেশন, বাড়ৈপাড়া, গৈড়লার টেক, ঘোষের হাট, কৃষি স্কুল, বাদামতল, শাহাগদী মার্কেট, উনাইন পুরা, কাগজীপাড়া, ইন্দ্রপুল, পটিয়া হাসপাতাল, ছন্দা ছিনেমা, মুনন্সেফ বাজার, পোষ্ট অফিস, থানার মোড়, ছবুর রোড়, রেলওয়ে ষ্টেশন, আমির ভান্ডার রেল গেইট, ডাকবাংলোর মোড়, বাস ষ্টেশন, বিওসি রোড়, দক্ষিণ ভূর্ষি, উত্তর ভূর্ষি, নাথ পাড়ার টেক, ধলঘাট ক্যাম্প, মাতৃভান্ডার, খানমোহনা গেইট, প্রভা ষ্টোর, ঈশ্বর খাইন, আলামপুর, কেলিশহর, মৌলভীহাট, ছত্তার পেটুয়া, বড়–য়া পাড়া, মাইজ পাড়া, দারোগা হাট, খিল্লা পাড়া, কেলিশহর ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন, ভট্টাচার্য্য হাট, কেচিয়া পাড়া, হাইদগাঁও, কাজি পাড়া, গুচ্ছগ্রাম, মাহাদাবাদ, ডুয়ার পাড়া, ছনখোলা, দীঘির পাড় হাট, মাহাদাম পাড়া, কচুয়াই, কমল মুন্সির হাট, গিরি বাজার, চক্রশালা রেল ষ্টেশন, শ্রীমাই, ফারুকী পাড়া, খইশ্যা পাড়া, ওহেদুর পাড়া, মল্ল পাড়া, অলির হাট, খরনা রাস্তার মাথা, খরনা রেলওয়ে ষ্টেশন, চৌধুরী পাড়া, মুজাফারাবাদ, মুরাদাবাদ, শোভনদন্ডীর মহাজন হাট, আজিমপুর, হাতিয়ার ঘোনা, এলাহাবাদ, কালিয়াইশ, আশাতা, মুরালী ঘাট, ছনহরা, দক্ষিণ ছনহরা, উত্তর ছনহরা, আলামদার পাড়া, বড়িয়া, ভাটিখাইন বড়–য়া পাড়া, সীতাবিধু স্কুল সংলগ্ন, শ্রীমাই ব্রীজ, ভাটিখাইন ব্রীজ, করল, শৈলী বাপের বাড়ী, পাইক পাড়া, বৈলতলী রোড়, পুরাতন থানার হাট, সবজার পাড়া, হাজীর পাড়া, নাথ পাড়া, সোনামিঞা সওদাগর বাড়ী, শেয়ান পাড়া, মাঝের ঘাটা, বাইপাস সড়ক সংলগ্ন বাখখালী, ব্রাহ্মণ পাড়া, বাহুলী, চিকন কাজী পাড়া, ধর পাড়া, শীল পাড়া, ছিপাতলী, সুচক্রদন্ডী, মমতা আবাসিক এলাকা সহ ৩ শতাধিক স্পটে জমজমাট ভাবে মাদক ও ইয়াবা ব্যবসার বিকিকিনি চলছে। তবে, পটিয়ার মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের কর্মকর্তারা নিরব দর্শকের ভূমিকা পালন করছে। যাহা জনমনে নানান প্রশ্ন দেখা দিয়েছে। অভিযোগ উঠেছে, মাঝে মধ্যে পুলিশ গুটি কয়েক মাদক ব্যবসায়ীদের গ্রেফতার করলেও বড় বড় মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ীরা ধরা ছোঁয়ার বাইরে রয়েছে। মাদকদ্রব্য অধিদপ্তরের এক শ্রেণীর কর্মকর্তারা মাদক ও ইয়াবা ব্যবসায়ীদের তালিকা তৈরি করে মাসিক মাসোহারা টাকা আদায় করছে। যার ফলে তাদেরকে গ্রেফতার করছেনা। এতে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন পটিয়ার বিভিন্ন শ্রেণীর পেশার লোকজন। এ মাদক ব্যবসায়ীরা কারা এবং মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের তদন্ত সাপেক্ষে গ্রেফতার করে যুব সমাজকে ধ্বংসের হাত থেকে রক্ষা করার জন্য পটিয়ার এম. পি, উপজেলার চেয়ারম্যান, পৌর মেয়র, থানার ওসি, পটিয়ার কৃতি সন্তান বাংলাদেশ মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তর এর মহা-পরিচালক জামাল উদ্দিন আহামদ এর সু-দৃষ্টি কামনা করেছে পটিয়াবাসী।

SHARE